ঢাকা ০৪:৪১ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আড়াইহাজারে সাবেক স্ত্রীর অন্তরঙ্গ ছবি ফেজবুকে আপলোড, সাবেক স্বামী শ্রীঘরে

রফিকুল ইসলাম রানা (নিজস্ব প্রতিবেদক)
রফিকুল ইসলাম রানা (নিজস্ব প্রতিবেদক)
  • আপলোড সময় : ০৯:১১:১৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০২৩
  • / ৩০০ বার পড়া হয়েছে

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ডিভোর্সি স্ত্রীর অন্তরঙ্গ ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করে শ্রীগরে গিয়েছেন মোহাম্মদ ইউছুফ আলী (৪০) নামে এক ব্যাক্তি। তিনি উপজেলার দুপ্তারা ইউনিয়নের গিরদা চৌধুরীপাড়া এলাকার লতিফ খন্দকারের ছেলে। মঙ্গলবার এ ব্যাপারে তার সাবেক স্ত্রী মাহমুদা আক্তার (৩০) বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করার সাথে সাথে তাকে গ্রেফতার করে নারায়ণগঞ্জ আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়।

আড়াইহাজার থানার ওসি আহসানউল্লাহ জানান, অভিযুক্ত মোহাম্মদ ইউছুফ আলী ১১ বছর আগে বিয়ে করেন নরসিংদীর শিবপুর থানার ঘাশিরদিয়া এলাকার মোহাম্মদ ফিরোজ মিয়ার মেয়ে মাহমুদা আক্তার কে। তাদের ফাহিম (৯) নামে একটি পুত্র সন্তান আছে। বিয়ের পর থেকেই ইউছুফ স্ত্রীর উপর অত্যাচার নির্যাতন করতো। এক সময় সে স্ত্রী পুত্রকে বাড়ীতে রেখে বিদেশে চলে যায় এবং তাদের সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। স্ত্রী পুত্রের ভরণ পোষণ দেয়া বন্ধ করে দেয়। পরে এ নিয়ে শালিস দরবার শেষে মাহমুদা ইউছুফকে ডিভোর্স দেয়। ফলে ক্ষিপ্ত হয়ে ইউছুফ ডিভোর্সি স্ত্রী কে প্রাণ নাশের হুমকী দিতে থাকে। সম্প্রতি ইউছুফ দেশে এসে তাদের দাম্পত্য জীবন চলাকালিন সময়ের কিছু অন্তরঙ্গ ছবি ফেজবুক, ইউটিউব সহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড দেয়।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

আড়াইহাজারে সাবেক স্ত্রীর অন্তরঙ্গ ছবি ফেজবুকে আপলোড, সাবেক স্বামী শ্রীঘরে

আপলোড সময় : ০৯:১১:১৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০২৩

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ডিভোর্সি স্ত্রীর অন্তরঙ্গ ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করে শ্রীগরে গিয়েছেন মোহাম্মদ ইউছুফ আলী (৪০) নামে এক ব্যাক্তি। তিনি উপজেলার দুপ্তারা ইউনিয়নের গিরদা চৌধুরীপাড়া এলাকার লতিফ খন্দকারের ছেলে। মঙ্গলবার এ ব্যাপারে তার সাবেক স্ত্রী মাহমুদা আক্তার (৩০) বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করার সাথে সাথে তাকে গ্রেফতার করে নারায়ণগঞ্জ আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়।

আড়াইহাজার থানার ওসি আহসানউল্লাহ জানান, অভিযুক্ত মোহাম্মদ ইউছুফ আলী ১১ বছর আগে বিয়ে করেন নরসিংদীর শিবপুর থানার ঘাশিরদিয়া এলাকার মোহাম্মদ ফিরোজ মিয়ার মেয়ে মাহমুদা আক্তার কে। তাদের ফাহিম (৯) নামে একটি পুত্র সন্তান আছে। বিয়ের পর থেকেই ইউছুফ স্ত্রীর উপর অত্যাচার নির্যাতন করতো। এক সময় সে স্ত্রী পুত্রকে বাড়ীতে রেখে বিদেশে চলে যায় এবং তাদের সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। স্ত্রী পুত্রের ভরণ পোষণ দেয়া বন্ধ করে দেয়। পরে এ নিয়ে শালিস দরবার শেষে মাহমুদা ইউছুফকে ডিভোর্স দেয়। ফলে ক্ষিপ্ত হয়ে ইউছুফ ডিভোর্সি স্ত্রী কে প্রাণ নাশের হুমকী দিতে থাকে। সম্প্রতি ইউছুফ দেশে এসে তাদের দাম্পত্য জীবন চলাকালিন সময়ের কিছু অন্তরঙ্গ ছবি ফেজবুক, ইউটিউব সহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড দেয়।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন