ঢাকা ১০:২৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মনোনয়নের আবেদনপত্র জমা দিলেন এমপি বাহার

মোঃ জানে আলম (কুমিল্লা প্রতিনিধি)
মোঃ জানে আলম (কুমিল্লা প্রতিনিধি)
  • আপলোড সময় : ১১:১৫:৪৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ নভেম্বর ২০২৩
  • / ৫১০ বার পড়া হয়েছে

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য দলীয় মনোনয়নের আবেদনপত্র জমা দিয়েছেন কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আ ক ম বাহাউদ্দীন বাহার এমপি। রোববার (১৯ নভেম্বর) দুপুরের দিকে তিনি মনোনয়নপত্র জমা দেন। এর আগে গত শনিবার (১৮ নভেম্বর) দুপুরে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে কুমিল্লা-৬ আসনের জন্য দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন এমপি বাহার। কুমিল্লা-৬ আসনটিতে ১৯৭৩ সালের পর আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রথম জয় ছিনিয়ে আনেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আ ক ম বাহাউদ্দীন বাহার। সর্বশেষ ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচনেও তিনি এ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।
এক প্রতিক্রিয়ায় আ ক ম বাহাউদ্দীন বাহার এমপি বলেন, দলের নেতাকর্মী ও কুমিল্লার সাধারণ জনগণ আমার পক্ষে আছেন। আগামী নির্বাচনের জন্য আমি দলের কাছে মনোনয়ন চেয়েছি। এ আসনটি আবারও জননেত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিতে সক্ষম হব ইনশাল্লাহ।
কুমিল্লা সিটি করপোরেশন, আদর্শ সদর উপজেলা ও কুমিল্লা সেনানিবাস এলাকা নিয়ে গঠিত কুমিল্লা-৬ (সদর) আসন। পুরো জেলার রাজনীতির গতি- প্রকৃতি নিয়ন্ত্রিত হয় এ জেলা সদর থেকে। তাই এটিকে কুমিল্লার গুরুত্বপূর্ণ আসন হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এ আসনের বারবার নির্বাচিত এমপি হাজী বাহারের পুরো জেলাজুড়ে রয়েছে একক আধিপত্য। বেশ কয়েকজন এমপির সাথে গভীর সখ্যতার পাশাপাশি কুমিল্লা সিটি কপোরেশনের মেয়র আরফানুল হক রিফাত, কুমিল্লা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মফিজুর রহমান বাবলু ,সদর উপজেলা চেয়ারম্যান এড. আমিনুল ইসলাম টুটুল সহ জেলায় ১৭ উপজেলার মধ্যে অন্তত: এক ডজন উপজেলা চেয়ারম্যান রয়েছে তার অনুসারী। এর কারণে সাংগঠনিক নেতা হিসেবেও তিনি বেশ শক্তিশালী।
জানা যায়, কুমিল্লা-৬ আসন এক সময় বিএনপির ঘাঁটি ছিল। দলটির সাবেক নেতা ও নৌপরিবহন মন্ত্রী প্রয়াত লে. কর্নেল (অব) আকবর হোসেন এ আসন থেকে বারবার নির্বাচিত হন। ১৯৭৩ সালের পর থেকে ২০০৮ পর্যন্ত এ আসনে কখনো আওয়ামী লীগ বিজয়ী হতে পারেনি। ২০০৮ সালেই প্রথম বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার কাঙ্খিত আসনটি আওয়ামী লীগকে উপহার দেন। ২০১৪ ও ২০১৮ সালেও তিনি বিপুল ভোটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি। কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের রুপকার বাহার বর্তমানে মহানগর আওয়ামী লীগেরও প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। করোনাকালে মানুষের পাশে থাকা, বিএনপি-জামায়াতসহ বিরোধী দলগুলোর আন্দোলন মোকাবিলা, দলের নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন ও দলের তৃণমূল পর্যায়ে কমিটি গঠনে সংগঠনকে শক্তিশালী করতে ভূমিকা রেখেছেন বাহাউদ্দিন বাহার। বিগত ১৫ বছরে এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর সাথে ভিডিও কনফারেন্সে কুমিল্লা নামে বিভাগ করার দাবি জানিয়ে দেশে-বিদেশে প্রশংসার পাশাপাশি জনমত সৃষ্টিতেও ব্যাপক ভূমিকা রাখছেন। আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্প্রতি সদর উপজেলার ৬ ইউনিয়ন ও মহানগর আওয়ামী লীগের ২৭ টি ওয়ার্ড কমিটি নতুন করে ঢেলে সাজিয়েছেন। দলের নেতাকর্মীরা বলছেন, আগামী নির্বাচনেও আওয়ামী লীগে আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের বিকল্প নেই।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

মনোনয়নের আবেদনপত্র জমা দিলেন এমপি বাহার

আপলোড সময় : ১১:১৫:৪৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ নভেম্বর ২০২৩

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য দলীয় মনোনয়নের আবেদনপত্র জমা দিয়েছেন কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আ ক ম বাহাউদ্দীন বাহার এমপি। রোববার (১৯ নভেম্বর) দুপুরের দিকে তিনি মনোনয়নপত্র জমা দেন। এর আগে গত শনিবার (১৮ নভেম্বর) দুপুরে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে কুমিল্লা-৬ আসনের জন্য দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন এমপি বাহার। কুমিল্লা-৬ আসনটিতে ১৯৭৩ সালের পর আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রথম জয় ছিনিয়ে আনেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আ ক ম বাহাউদ্দীন বাহার। সর্বশেষ ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচনেও তিনি এ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।
এক প্রতিক্রিয়ায় আ ক ম বাহাউদ্দীন বাহার এমপি বলেন, দলের নেতাকর্মী ও কুমিল্লার সাধারণ জনগণ আমার পক্ষে আছেন। আগামী নির্বাচনের জন্য আমি দলের কাছে মনোনয়ন চেয়েছি। এ আসনটি আবারও জননেত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিতে সক্ষম হব ইনশাল্লাহ।
কুমিল্লা সিটি করপোরেশন, আদর্শ সদর উপজেলা ও কুমিল্লা সেনানিবাস এলাকা নিয়ে গঠিত কুমিল্লা-৬ (সদর) আসন। পুরো জেলার রাজনীতির গতি- প্রকৃতি নিয়ন্ত্রিত হয় এ জেলা সদর থেকে। তাই এটিকে কুমিল্লার গুরুত্বপূর্ণ আসন হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এ আসনের বারবার নির্বাচিত এমপি হাজী বাহারের পুরো জেলাজুড়ে রয়েছে একক আধিপত্য। বেশ কয়েকজন এমপির সাথে গভীর সখ্যতার পাশাপাশি কুমিল্লা সিটি কপোরেশনের মেয়র আরফানুল হক রিফাত, কুমিল্লা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মফিজুর রহমান বাবলু ,সদর উপজেলা চেয়ারম্যান এড. আমিনুল ইসলাম টুটুল সহ জেলায় ১৭ উপজেলার মধ্যে অন্তত: এক ডজন উপজেলা চেয়ারম্যান রয়েছে তার অনুসারী। এর কারণে সাংগঠনিক নেতা হিসেবেও তিনি বেশ শক্তিশালী।
জানা যায়, কুমিল্লা-৬ আসন এক সময় বিএনপির ঘাঁটি ছিল। দলটির সাবেক নেতা ও নৌপরিবহন মন্ত্রী প্রয়াত লে. কর্নেল (অব) আকবর হোসেন এ আসন থেকে বারবার নির্বাচিত হন। ১৯৭৩ সালের পর থেকে ২০০৮ পর্যন্ত এ আসনে কখনো আওয়ামী লীগ বিজয়ী হতে পারেনি। ২০০৮ সালেই প্রথম বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার কাঙ্খিত আসনটি আওয়ামী লীগকে উপহার দেন। ২০১৪ ও ২০১৮ সালেও তিনি বিপুল ভোটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি। কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের রুপকার বাহার বর্তমানে মহানগর আওয়ামী লীগেরও প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। করোনাকালে মানুষের পাশে থাকা, বিএনপি-জামায়াতসহ বিরোধী দলগুলোর আন্দোলন মোকাবিলা, দলের নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন ও দলের তৃণমূল পর্যায়ে কমিটি গঠনে সংগঠনকে শক্তিশালী করতে ভূমিকা রেখেছেন বাহাউদ্দিন বাহার। বিগত ১৫ বছরে এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর সাথে ভিডিও কনফারেন্সে কুমিল্লা নামে বিভাগ করার দাবি জানিয়ে দেশে-বিদেশে প্রশংসার পাশাপাশি জনমত সৃষ্টিতেও ব্যাপক ভূমিকা রাখছেন। আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্প্রতি সদর উপজেলার ৬ ইউনিয়ন ও মহানগর আওয়ামী লীগের ২৭ টি ওয়ার্ড কমিটি নতুন করে ঢেলে সাজিয়েছেন। দলের নেতাকর্মীরা বলছেন, আগামী নির্বাচনেও আওয়ামী লীগে আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের বিকল্প নেই।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন