ঢাকা ০৯:৪০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভূমিদস্যু থেকে সুবর্ণচরকে বাঁচাতে ভূমিহীনদের মানববন্ধন

মোহাম্মদ আবু নাছের (জেলা প্রতিনিধি নোয়াখালী)
মোহাম্মদ আবু নাছের (জেলা প্রতিনিধি নোয়াখালী)
  • আপলোড সময় : ১০:০০:০৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ৩০৮ বার পড়া হয়েছে

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে রামগতির ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে এবং প্রকৃত ভূমিহীনদের জায়গা বন্দোবস্ত দেয়ার দাবীতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে ভূমিহীন ও ভুক্তভোগী পরিবার। 

বিভিন্ন সময় প্রশাসন সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করে ও কোন কূলকিনারা পায়নি বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা।

শনিবার ( ৩ ফেব্রুয়ারি ) বিকেল ৩টায় সুবর্ণচর উপজেলার ৫নং চর জুবিলী ইউনিয়নের ছিদ্দিক চেয়ারম্যান বাজারে  (নতুন বাজার) ভূমিহীদের এই  মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। প্রায় পাঁচ শতাধিক ভূমিহীন পরিবারের সদস্যরা এতে অংশ গ্রহণ করেন।

মানববন্ধনে ভূমিহীনরা অভিযোগ করে বলেন, লক্ষীপুর জেলার রামগতি উপজেলা সংলগ্ন সুবর্ণচরের ৫০ একর সরকারী খাসজমি কাগজ পত্র করে ভূমিহীনরা নথি সীজন পূর্বক ঘর-বাড়ী নির্মান করে বসবাস করছে। ভূমিহীনদের দাবী দীর্ঘদিন তাদের দখলে থাকা জায়গা-জমি প্বার্শবতী লক্ষীপুর জেলার রামগতি উপজেলার বাদশা ডাকাত, ফরিদ মেম্বার, বাবর শিকদার, মোঃ দিদার, মাকছুদ, সাদ্দাম সহ ২০-২৫  জন সন্ত্রাসী বাহিনী গত  এক সপ্তাহ আগে থেকে সুবর্ণচরে প্রবেশ করে দেশীয় অস্ত্রসস্রে নিয়ে নিরিহ ভূমিহীনদের বাড়ী-ঘর দখল করার চেষ্টা করছে এবং লুটপাট করে আসছে।

এ বিষয়ে ভূমিহীনগন সুবর্ণচর উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা সহকারী কমিশনার ( ভূমি), উপজেলা প্রশাসন কে  অবহিত করে ও কোন প্রতিকার পাচ্ছে না।

লক্ষীপুরের ভূমি দস্যুরা অবৈধভাবে সুবর্ণচরে প্রবেশ করে কিছু অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজশে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ভূমিহীনদের বাড়ী-ঘর, মসজিদ, মাদ্রাসা, ডোবা, নালা, খাল বিলের জায়গা, ভূমিহীনদের দীর্ঘদিনের দখলীয় জায়গা অবৈধ ভাবে দখল করার চেষ্টা করছে।

ক্ষতিগ্রস্থ ভূমিহীনরা বলেন, আমরা ২০০২ সালে সরকারি জায়গায় বসবাস শুরু করি, পরবর্তীতে ২০০৫-২০০৬ সালে সিডিএসপি’র মাঠ জরিপে দখল প্রমাণিত হওয়ায় ভুমিহীন ৫০টি পরিবারকে ভুমিহীন টোকেন স্লিপ প্রদান করে।

কিন্তু ভুমিহীনদের নামে খতিয়ান হওয়ার পূর্বেই রামগতির ভূমিদূস্যুদের হামলা ও দখল দারিত্বের কারণে আমরা ভূমিহীনরা মাথা গোঁজার শেষ ঠিকানা টুকু নিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছি।

এসকল ঘটনার পর থেকে আমরা বিভিন্ন মহলে অভিযোগ করি এবং এসব অন্যায়ের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় সংবাদ সম্মেলন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করে আসছি। এতো কিছুর পরেও কোন প্রতিকার পাইনি। উল্টো ভূমিদস্যুরা আমাদের কে ঘর-বাড়ি ছেড়ে চলে যাওয়ার হুমকি দেয়। এখন আমরা উচ্ছেদ আতংকে ভূগছি। ভূমিদস্যুরা এই পর্যন্ত বহু  পরিবারের উপর নির্যাতন করেছে ।

ভুক্তভোগী ভূমিহীনরা আরো বলেন, ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা ও উপযুক্ত শাস্তি প্রদানের জন্য  ভূক্তিভোগীরা প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, নোয়াখালী-৪ সদর-সুবর্ণচর আসনের সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী, নোয়াখালী জেলা প্রশাসক, নোয়াখালী পুলিশ সুপার, সুবর্ণচর উপজেলা নির্বাহী অফিসার, ভুমি কর্মকর্তা এবং চরজব্বার থানা সহ সংশ্লিষ্ট সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, ভূমিহীন নেতা মোঃ ইসমাইল, ইয়ানুর বেগম, মাকছুদ আহম্মদ, জুলেখা আক্তার, মোঃ হোসেন গোলাম ছারওয়ার, ফাতেমা, মফিজুর রহমান,  ভূমিহীন নেত্রী আমেনা বেগম, ভুক্তভোগী ভূমিহীন সহ আরো অনেকে ।

 

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

ভূমিদস্যু থেকে সুবর্ণচরকে বাঁচাতে ভূমিহীনদের মানববন্ধন

আপলোড সময় : ১০:০০:০৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে রামগতির ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে এবং প্রকৃত ভূমিহীনদের জায়গা বন্দোবস্ত দেয়ার দাবীতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে ভূমিহীন ও ভুক্তভোগী পরিবার। 

বিভিন্ন সময় প্রশাসন সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করে ও কোন কূলকিনারা পায়নি বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা।

শনিবার ( ৩ ফেব্রুয়ারি ) বিকেল ৩টায় সুবর্ণচর উপজেলার ৫নং চর জুবিলী ইউনিয়নের ছিদ্দিক চেয়ারম্যান বাজারে  (নতুন বাজার) ভূমিহীদের এই  মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। প্রায় পাঁচ শতাধিক ভূমিহীন পরিবারের সদস্যরা এতে অংশ গ্রহণ করেন।

মানববন্ধনে ভূমিহীনরা অভিযোগ করে বলেন, লক্ষীপুর জেলার রামগতি উপজেলা সংলগ্ন সুবর্ণচরের ৫০ একর সরকারী খাসজমি কাগজ পত্র করে ভূমিহীনরা নথি সীজন পূর্বক ঘর-বাড়ী নির্মান করে বসবাস করছে। ভূমিহীনদের দাবী দীর্ঘদিন তাদের দখলে থাকা জায়গা-জমি প্বার্শবতী লক্ষীপুর জেলার রামগতি উপজেলার বাদশা ডাকাত, ফরিদ মেম্বার, বাবর শিকদার, মোঃ দিদার, মাকছুদ, সাদ্দাম সহ ২০-২৫  জন সন্ত্রাসী বাহিনী গত  এক সপ্তাহ আগে থেকে সুবর্ণচরে প্রবেশ করে দেশীয় অস্ত্রসস্রে নিয়ে নিরিহ ভূমিহীনদের বাড়ী-ঘর দখল করার চেষ্টা করছে এবং লুটপাট করে আসছে।

এ বিষয়ে ভূমিহীনগন সুবর্ণচর উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা সহকারী কমিশনার ( ভূমি), উপজেলা প্রশাসন কে  অবহিত করে ও কোন প্রতিকার পাচ্ছে না।

লক্ষীপুরের ভূমি দস্যুরা অবৈধভাবে সুবর্ণচরে প্রবেশ করে কিছু অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজশে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ভূমিহীনদের বাড়ী-ঘর, মসজিদ, মাদ্রাসা, ডোবা, নালা, খাল বিলের জায়গা, ভূমিহীনদের দীর্ঘদিনের দখলীয় জায়গা অবৈধ ভাবে দখল করার চেষ্টা করছে।

ক্ষতিগ্রস্থ ভূমিহীনরা বলেন, আমরা ২০০২ সালে সরকারি জায়গায় বসবাস শুরু করি, পরবর্তীতে ২০০৫-২০০৬ সালে সিডিএসপি’র মাঠ জরিপে দখল প্রমাণিত হওয়ায় ভুমিহীন ৫০টি পরিবারকে ভুমিহীন টোকেন স্লিপ প্রদান করে।

কিন্তু ভুমিহীনদের নামে খতিয়ান হওয়ার পূর্বেই রামগতির ভূমিদূস্যুদের হামলা ও দখল দারিত্বের কারণে আমরা ভূমিহীনরা মাথা গোঁজার শেষ ঠিকানা টুকু নিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছি।

এসকল ঘটনার পর থেকে আমরা বিভিন্ন মহলে অভিযোগ করি এবং এসব অন্যায়ের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় সংবাদ সম্মেলন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করে আসছি। এতো কিছুর পরেও কোন প্রতিকার পাইনি। উল্টো ভূমিদস্যুরা আমাদের কে ঘর-বাড়ি ছেড়ে চলে যাওয়ার হুমকি দেয়। এখন আমরা উচ্ছেদ আতংকে ভূগছি। ভূমিদস্যুরা এই পর্যন্ত বহু  পরিবারের উপর নির্যাতন করেছে ।

ভুক্তভোগী ভূমিহীনরা আরো বলেন, ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা ও উপযুক্ত শাস্তি প্রদানের জন্য  ভূক্তিভোগীরা প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, নোয়াখালী-৪ সদর-সুবর্ণচর আসনের সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী, নোয়াখালী জেলা প্রশাসক, নোয়াখালী পুলিশ সুপার, সুবর্ণচর উপজেলা নির্বাহী অফিসার, ভুমি কর্মকর্তা এবং চরজব্বার থানা সহ সংশ্লিষ্ট সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, ভূমিহীন নেতা মোঃ ইসমাইল, ইয়ানুর বেগম, মাকছুদ আহম্মদ, জুলেখা আক্তার, মোঃ হোসেন গোলাম ছারওয়ার, ফাতেমা, মফিজুর রহমান,  ভূমিহীন নেত্রী আমেনা বেগম, ভুক্তভোগী ভূমিহীন সহ আরো অনেকে ।

 

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন