ঢাকা ০৩:৫১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বানিজ্য মেলায় দর্শনার্থীদের সেবা দিতে ডিকেএমসি হাসপাতালের অধ্যাপক ডাক্তার এম এ কাশেম

মুহাম্মদ আলী (নিজস্ব প্রতিবেদক)
মুহাম্মদ আলী (নিজস্ব প্রতিবেদক)
  • আপলোড সময় : ০৬:৫১:১৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ২৪৬ বার পড়া হয়েছে

এবারের বানিজ্য মেলাকে সাফল্যমন্ডিত করতে এবং ২০২৩ সালের তুলনায় স্টল ও প্যাভিলিয়নের সংখ্যা যেমন বেড়েছে তেমনি বেড়েছে সেচ্চায় সেবা দানকারী প্রতিষ্ঠানের সংখ্যাও। সেদিক থেকে পিছিয়ে নেই স্থানীয় ডি কে এম সি হাসপাতাল।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, বাংলাদেশের বড় বড় প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি সেবা দিয়ে যাচ্ছে স্থানীয় প্রতিষ্ঠান ডিকেএমসি হাসপাতালের দক্ষ একদল স্বেচ্ছাসেবী কর্মী বাহিনী। ডিকেএমসি হালপাতাল লিঃ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. এম এ কাসেম সাহেবের তত্তাবধানে সার্বক্ষনিক রোগীদের সেবা দেয়াসহ বিনা মূল্যে তাদের ঔষধ বিতরণ, প্রাথমিক চিকিৎসা, ব্লাড প্রেসার মাপা, ডায়াবেটিস পরিক্ষাসহ মেলায় আগত যে কোন লোক হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাদের তাৎক্ষনিক সেবা দানের উদ্যেশ্যেই তাদের এই আয়োজন।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) বানিজ্য মেলায় ডি কে এম সি হাসপাতালের ক্যাম্প পরিদর্শন করে মেলায় ঘুরতে আসা দর্শণার্থীদের মধ্যে অসুস্থ হয়ে যাওয়া লোকদের হাসপাতালের অধ্যাপক ডাক্তার এম এ কাশেম ও হাসপাতালের চেয়ারম্যান সালমা পারভীনসহ হাসপাতালের কর্মকর্তারা সেবা প্রধান করেন

ডিকেএমসি হাসপাতালের ব্যাপারে কথা হয় হাসপাতালের নির্বাহী পরিচালক নজরুল ইসলামে ও
ম্যানেজার খাইরুল আলম এর সাথে তিনি বলেন, আমরা ডিকেএমসি হাসপাতালের মাধ্যমে রূপগঞ্জে বিভিন্ন সময় ক্যাম্পেন করে বেশ সুনাম অর্জন করেছি। তাই এবার বানিজ্য মেলায় মানুষের সেবা দিয়ে জাতীয় পর্যায়ে সেবার মান বাড়ানোই আমাদের মুল লক্ষ্য।

মেলায় ঘুরতে আসা কামাল মিয়া জানান, আমি মেলায় ঘুরার এক পর্যায়ে অসুস্থ অনুভব করি, তৎক্ষণাৎ ডিকেএমসি হাসপাতালের ক্যাম্পে যাই, হাসপাতালের অধ্যাপক ডা: এম এ কাশেম স্যার কে দেখে উন্নত চিকিৎসায় তার কাছে থেকে সেবা প্রধান করি।

আমাকে ২০ মিনিট বিশ্রামে রেখে আমার শারিরিক অবস্থার উন্নতি হলে আমি বাসায় চলে যাই।

এসময় ডিকেএমসি হাসপাতালের একাউন্টেন্ট শামসুল আলম কে ভালো সেবা নিশ্চিত করতে ক্যাম্পে উপস্থিত দেখা যায়।

এ ব্যাপারে ইপিবির সচিব ও বানিজ্য মেলার পরিচালক বিবেক সরকার বলেন, এবারের মেলায় স্টল ও প্যাভিলিয়ন নিয়ে মোট ৩৫১ টি স্টল বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। তার মধ্যে বেশ কয়েকটি সেচ্ছাসেবী ও সেবা ধর্মী সংগঠনও আছে। তাদের মধ্যে ডিকেএমসি, মেনেজমেন্ট নেট এন্ড বাংলাদেশ থেলাসেমিয়া সমিতি হাসপাতাল ও বিআরবি হাসপাতাল অন্যতম

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

বানিজ্য মেলায় দর্শনার্থীদের সেবা দিতে ডিকেএমসি হাসপাতালের অধ্যাপক ডাক্তার এম এ কাশেম

আপলোড সময় : ০৬:৫১:১৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

এবারের বানিজ্য মেলাকে সাফল্যমন্ডিত করতে এবং ২০২৩ সালের তুলনায় স্টল ও প্যাভিলিয়নের সংখ্যা যেমন বেড়েছে তেমনি বেড়েছে সেচ্চায় সেবা দানকারী প্রতিষ্ঠানের সংখ্যাও। সেদিক থেকে পিছিয়ে নেই স্থানীয় ডি কে এম সি হাসপাতাল।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, বাংলাদেশের বড় বড় প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি সেবা দিয়ে যাচ্ছে স্থানীয় প্রতিষ্ঠান ডিকেএমসি হাসপাতালের দক্ষ একদল স্বেচ্ছাসেবী কর্মী বাহিনী। ডিকেএমসি হালপাতাল লিঃ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. এম এ কাসেম সাহেবের তত্তাবধানে সার্বক্ষনিক রোগীদের সেবা দেয়াসহ বিনা মূল্যে তাদের ঔষধ বিতরণ, প্রাথমিক চিকিৎসা, ব্লাড প্রেসার মাপা, ডায়াবেটিস পরিক্ষাসহ মেলায় আগত যে কোন লোক হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাদের তাৎক্ষনিক সেবা দানের উদ্যেশ্যেই তাদের এই আয়োজন।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) বানিজ্য মেলায় ডি কে এম সি হাসপাতালের ক্যাম্প পরিদর্শন করে মেলায় ঘুরতে আসা দর্শণার্থীদের মধ্যে অসুস্থ হয়ে যাওয়া লোকদের হাসপাতালের অধ্যাপক ডাক্তার এম এ কাশেম ও হাসপাতালের চেয়ারম্যান সালমা পারভীনসহ হাসপাতালের কর্মকর্তারা সেবা প্রধান করেন

ডিকেএমসি হাসপাতালের ব্যাপারে কথা হয় হাসপাতালের নির্বাহী পরিচালক নজরুল ইসলামে ও
ম্যানেজার খাইরুল আলম এর সাথে তিনি বলেন, আমরা ডিকেএমসি হাসপাতালের মাধ্যমে রূপগঞ্জে বিভিন্ন সময় ক্যাম্পেন করে বেশ সুনাম অর্জন করেছি। তাই এবার বানিজ্য মেলায় মানুষের সেবা দিয়ে জাতীয় পর্যায়ে সেবার মান বাড়ানোই আমাদের মুল লক্ষ্য।

মেলায় ঘুরতে আসা কামাল মিয়া জানান, আমি মেলায় ঘুরার এক পর্যায়ে অসুস্থ অনুভব করি, তৎক্ষণাৎ ডিকেএমসি হাসপাতালের ক্যাম্পে যাই, হাসপাতালের অধ্যাপক ডা: এম এ কাশেম স্যার কে দেখে উন্নত চিকিৎসায় তার কাছে থেকে সেবা প্রধান করি।

আমাকে ২০ মিনিট বিশ্রামে রেখে আমার শারিরিক অবস্থার উন্নতি হলে আমি বাসায় চলে যাই।

এসময় ডিকেএমসি হাসপাতালের একাউন্টেন্ট শামসুল আলম কে ভালো সেবা নিশ্চিত করতে ক্যাম্পে উপস্থিত দেখা যায়।

এ ব্যাপারে ইপিবির সচিব ও বানিজ্য মেলার পরিচালক বিবেক সরকার বলেন, এবারের মেলায় স্টল ও প্যাভিলিয়ন নিয়ে মোট ৩৫১ টি স্টল বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। তার মধ্যে বেশ কয়েকটি সেচ্ছাসেবী ও সেবা ধর্মী সংগঠনও আছে। তাদের মধ্যে ডিকেএমসি, মেনেজমেন্ট নেট এন্ড বাংলাদেশ থেলাসেমিয়া সমিতি হাসপাতাল ও বিআরবি হাসপাতাল অন্যতম

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন