ঢাকা ০৩:৫২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সোনারগাঁ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের হাতুড়ে চিকিৎসক হাবিলের খুঁটির জোর কোথায়, আবারও ভুল চিকিৎসার শিকার শিক্ষার্থী

মোঃ ফাহাদুল ইসলাম শরীফ (সোনারগাঁ প্রতিনিধি)
মোঃ ফাহাদুল ইসলাম শরীফ (সোনারগাঁ প্রতিনিধি)
  • আপলোড সময় : ১১:০৭:১৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ ২০২৪
  • / ২৭৫ বার পড়া হয়েছে

নারায়ণগঞ্জ সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত ডাক্তার হাবিল ও সহকারীর বিরুদ্ধে ভূল চিকিৎসা দেয়ার অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী জাহিদুল আলম (২৫) এর পিতা আলমগীর হোসেন।

তিনি জানান, আমার ছেলে জাহিদুল আলম বিসিএসে কোচিং এর শিক্ষার্থী, গত ১০ মার্চ আমার ছেলে পায়ে জং ধরা লোহা জাতীয় জিনিস তার পায়ে প্রবেশ করে, পরে রক্তক্ষরণ হলে সাথে সাথে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাই, তখন কর্তব্যরত ডাক্তার হাবিল তার চিকিৎসা নেন, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মেডিসিন না থাকায় বাহির থেকে ইনজেকশন আনার জন্য আমাকে বলেন, আমি সাথে সাথে বাহির থেকে ইনজেকশন নিয়ে আসি, আমার ছেলেকে ইঞ্জেকশন পোস্ট করার পরে ছেলেটি ব্যথায় ছটফট করতে থাকে, তখন ডাক্তার হাবিল বলেন পর্যায়ক্রমে ঠিক হয়ে যাবে, ফলে তাকে বাসায় নিয়ে আসি, কিন্তু কিছুক্ষণ পর থেকে তার শরীরে তাপমাত্রা বেড়ে যায়, ব্যথা অনুভব করে ও পা ফুলা শুরু করে, সময় দীর্ঘায়িত হলে পায়ের ব্যথা শরীরের তাপমাত্রা ও ফুলা বেড়ে যাওয়ায় ,আমি প্রাইভেট হসপিটালে চিকিৎসা নেই। তারপর থেকে আমার ছেলের শারীরিক অবস্থা উন্নতি হতে শুরু করে, এভাবে ধীরে ধীরে আমার ছেলে সুস্থ হয়ে ওঠে।

এছাড়াও তিনি আরো জানান, সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা ব্যবস্থা খুবই দুর্বল অদক্ষ, হাতুড়ে ডাক্তারের মাধ্যমে চিকিৎসা দিয়ে থাকে, যার ভুক্তভোগী সোনারগাঁবাসী, এই ডাক্তারের বিরুদ্ধে আগে ও অনেক অভিযোগ শুনেছি কিন্তু কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার সাবরিনা হক জানান, বিষয়টি আমি শুনেছি তবে ওই মুহূর্তে আমি হসপিটালে উপস্থিত ছিলাম না, যদি তার চিকিৎসার মধ্যে অবহেলা ও ত্রুটি পাওয়া যায়, প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা আগেও নিয়েছি এবং এবারও নিব যাতে কেউ কোনো ভুল চিকিৎসার শিকার না হয়। তবে, তিনি ভূল চিকিৎসার বিষয়টি সঠিক নয় বলে দাবী করেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

সোনারগাঁ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের হাতুড়ে চিকিৎসক হাবিলের খুঁটির জোর কোথায়, আবারও ভুল চিকিৎসার শিকার শিক্ষার্থী

আপলোড সময় : ১১:০৭:১৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ ২০২৪

নারায়ণগঞ্জ সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত ডাক্তার হাবিল ও সহকারীর বিরুদ্ধে ভূল চিকিৎসা দেয়ার অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী জাহিদুল আলম (২৫) এর পিতা আলমগীর হোসেন।

তিনি জানান, আমার ছেলে জাহিদুল আলম বিসিএসে কোচিং এর শিক্ষার্থী, গত ১০ মার্চ আমার ছেলে পায়ে জং ধরা লোহা জাতীয় জিনিস তার পায়ে প্রবেশ করে, পরে রক্তক্ষরণ হলে সাথে সাথে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাই, তখন কর্তব্যরত ডাক্তার হাবিল তার চিকিৎসা নেন, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মেডিসিন না থাকায় বাহির থেকে ইনজেকশন আনার জন্য আমাকে বলেন, আমি সাথে সাথে বাহির থেকে ইনজেকশন নিয়ে আসি, আমার ছেলেকে ইঞ্জেকশন পোস্ট করার পরে ছেলেটি ব্যথায় ছটফট করতে থাকে, তখন ডাক্তার হাবিল বলেন পর্যায়ক্রমে ঠিক হয়ে যাবে, ফলে তাকে বাসায় নিয়ে আসি, কিন্তু কিছুক্ষণ পর থেকে তার শরীরে তাপমাত্রা বেড়ে যায়, ব্যথা অনুভব করে ও পা ফুলা শুরু করে, সময় দীর্ঘায়িত হলে পায়ের ব্যথা শরীরের তাপমাত্রা ও ফুলা বেড়ে যাওয়ায় ,আমি প্রাইভেট হসপিটালে চিকিৎসা নেই। তারপর থেকে আমার ছেলের শারীরিক অবস্থা উন্নতি হতে শুরু করে, এভাবে ধীরে ধীরে আমার ছেলে সুস্থ হয়ে ওঠে।

এছাড়াও তিনি আরো জানান, সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা ব্যবস্থা খুবই দুর্বল অদক্ষ, হাতুড়ে ডাক্তারের মাধ্যমে চিকিৎসা দিয়ে থাকে, যার ভুক্তভোগী সোনারগাঁবাসী, এই ডাক্তারের বিরুদ্ধে আগে ও অনেক অভিযোগ শুনেছি কিন্তু কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার সাবরিনা হক জানান, বিষয়টি আমি শুনেছি তবে ওই মুহূর্তে আমি হসপিটালে উপস্থিত ছিলাম না, যদি তার চিকিৎসার মধ্যে অবহেলা ও ত্রুটি পাওয়া যায়, প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা আগেও নিয়েছি এবং এবারও নিব যাতে কেউ কোনো ভুল চিকিৎসার শিকার না হয়। তবে, তিনি ভূল চিকিৎসার বিষয়টি সঠিক নয় বলে দাবী করেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন