ঢাকা ০৬:৫৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে অসম্মান করায় বিচার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন।

মোঃ সাজু সরকার (খানসামা, দিনাজপুর)
মোঃ সাজু সরকার (খানসামা, দিনাজপুর)
  • আপলোড সময় : ০২:৪০:৫৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ মে ২০২৪
  • / ২১৬ বার পড়া হয়েছে

দিনাজপুরের খানসামা উপজেলায় আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে গত(২৬ এপ্রিল) চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ সাইফুল ইসলাম,খানসামা ডিগ্রি কলেজ মাঠে তার নির্বাচনী প্রচারণায় দুই জন বীর মুক্তিযোদ্ধার পরিবারকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করার প্রতিবাদে (১১ মে) বিকালে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের পক্ষে সাবেক কমান্ডার মকলেছুর রহমানের নেতৃত্বে তীব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানিয়ে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে সংবাদ সম্মেলন করেন। এ সময় সাবেক কমান্ডার বলেন দেরিতে হলেও আমারা মনে করি এখনই সময় আমাদের মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে নিয়ে এই জঘন্য, অশ্রাব্য অশ্লীল ভাষার ব্যাবহার বন্ধ করতে সক্রিয় হবার। জাতির সূর্য সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদা পরিবারকে নিয়ে যারা এরকম বিরূপ মন্তব্য করেন এই সকল জঘন্য ভাষা প্রয়োগকারীকে ধিক্কার জানাই। তিনি আরও বলেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ সাইফুল ইসলাম মুক্তিযুদ্ধকে অস্বীকার করার মত কথা বলছেন এবং এই দুজন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে চিহ্নিত করে চুরি ডাকাতি করেছে বলে মন্তব্য করেন যার আজও কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি । সংবাদ সম্মেলন আরও উপস্থিত ছিলেন ডিপুটি কমান্ডার আজিজুল হক শাহ,বীর মুক্তিযুদ্ধা খায়রুল ইসলাম সহ সকল মুক্তিযোদ্ধাবৃন্দ ও মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সন্তানরা।

জানা যায় বীর মুক্তিযোদ্ধা মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা শামসুল আলম (রব্বানী) চৌধুরীকে নিয়ে এই অশালীন বক্তব্যে দেন সাইফুল ইসলাম। তার এই হীন আচরণ অত্র উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা পরিবার সহ সর্বস্তরের জনগণের ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে অসম্মান করায় বিচার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন।

আপলোড সময় : ০২:৪০:৫৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ মে ২০২৪

দিনাজপুরের খানসামা উপজেলায় আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে গত(২৬ এপ্রিল) চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ সাইফুল ইসলাম,খানসামা ডিগ্রি কলেজ মাঠে তার নির্বাচনী প্রচারণায় দুই জন বীর মুক্তিযোদ্ধার পরিবারকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করার প্রতিবাদে (১১ মে) বিকালে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের পক্ষে সাবেক কমান্ডার মকলেছুর রহমানের নেতৃত্বে তীব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানিয়ে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে সংবাদ সম্মেলন করেন। এ সময় সাবেক কমান্ডার বলেন দেরিতে হলেও আমারা মনে করি এখনই সময় আমাদের মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে নিয়ে এই জঘন্য, অশ্রাব্য অশ্লীল ভাষার ব্যাবহার বন্ধ করতে সক্রিয় হবার। জাতির সূর্য সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদা পরিবারকে নিয়ে যারা এরকম বিরূপ মন্তব্য করেন এই সকল জঘন্য ভাষা প্রয়োগকারীকে ধিক্কার জানাই। তিনি আরও বলেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ সাইফুল ইসলাম মুক্তিযুদ্ধকে অস্বীকার করার মত কথা বলছেন এবং এই দুজন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে চিহ্নিত করে চুরি ডাকাতি করেছে বলে মন্তব্য করেন যার আজও কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি । সংবাদ সম্মেলন আরও উপস্থিত ছিলেন ডিপুটি কমান্ডার আজিজুল হক শাহ,বীর মুক্তিযুদ্ধা খায়রুল ইসলাম সহ সকল মুক্তিযোদ্ধাবৃন্দ ও মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সন্তানরা।

জানা যায় বীর মুক্তিযোদ্ধা মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা শামসুল আলম (রব্বানী) চৌধুরীকে নিয়ে এই অশালীন বক্তব্যে দেন সাইফুল ইসলাম। তার এই হীন আচরণ অত্র উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা পরিবার সহ সর্বস্তরের জনগণের ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন