ঢাকা ১০:৫০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সাংবাদিকের উপর হামলা। প্রতিবাদে দেশজুড়ে মানব বন্ধন

মো: সাদ্দাম হোসেন মুন্না খান (নিজস্ব প্রতিবেদক)
মো: সাদ্দাম হোসেন মুন্না খান (নিজস্ব প্রতিবেদক)
  • আপলোড সময় : ০৪:৫৪:০০ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ জুন ২০২৪
  • / ৩২৬ বার পড়া হয়েছে

জামালপুরের বকশীগঞ্জে দৈনিক সমকালের সাংবাদিক মাসুদ উল হাসানের উপর হামলা, মারপিট, ক্যামেরা ছিনতাই ও মোটর সাইকেল ভাংচুর করা হয়েছে।শুক্রবার (৭ জুন) দিবাগত রাতে পৌর শহরের রাসেল আমিন মার্কেটের সামনে এই ঘটনা ঘটে।

জানা যায়,বকশীগঞ্জ উপজেলার সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাসুমা ইয়াসমিন স্মৃতি ও তার স্বামী আতিক সিদ্দিকী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ভাংচুরের মামলা ও চেক প্রতারণাসহ একাধিক মামলার আসামী।

নিজের কূ-কর্মের অপরাধের সংবাদ প্রকাশের বাধাগ্রস্থ করতেই সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাসুমা ইয়াছমিন স্মৃতি ও তার স্বামী আতিক সিদ্দিকী এই হামলার ঘটনা ঘটায়।

পরে এই ঘটনায় রাতেই নামীয় ৪ জনসহ অজ্ঞাতনামা আরো ৪-৫ জনকে আসামী করে বকশীগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন আহত সাংবাদিক মাসুদ উল হাসান।

উল্লেখ্য, শুক্রবার রাতে পৌর শহরের বাসস্ট্যান্ডে অফিস থেকে পেশাগত দায়িত্ব পালন শেষে মোটরসাইলে যোগে বাসায় ফিরছিলেন সাংবাদিক মাসুদ উল হাসান। দক্ষিন বাজার এলাকায় রাসেল আমিনের মার্কেটের সামনে পৌছাঁ মাত্র আগে থেকেই উৎপেতে থাকা সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মাসুমা ইয়াছমিন স্মৃতি ও তার স্বামী আতিক সিদ্দিকী, তার বাবা মজিবর রহমান,ভাই সজল মিয়াসহ অজ্ঞাত আরো ৮/৯ জন দুষ্কৃতকারীরা দেশীয় ধারালো অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সাংবাদিক মাসুদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এবং সাংবাদিক মাসুদকে চলন্ত মোটরসাইকেল থেকে ফেলে দিয়ে এলোপাথারি ভাবে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। এক পর্যায়ে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা চালায়। আতিকের হাতে থাকা ধারালো চাকু দিয়ে সাংবাদিক মাসুদকে হত্যার জন্য হাতে ও পিঠে আঘাত করে।

এ সময় মোটর সাইকেল ভাংচুর ও ক্যামেরা ছিনিয়ে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। পরে সাংবাদিক মাসুদের ডাকচিৎকারে পথচারী, সহকর্মী সাংবাদিক ও স্থানীয়রা এগিয়ে এসে তাদের কবল থেকে তাকে উদ্ধার করে বকশীগঞ্জ হাসপাতালে নিয়ে যায়।

এই ঘটনার প্রতিবাদে শনিবার সকালে শহরের বাসস্ট্যান্ডে এলাকায় সকল আসামীর গ্রেফতার দাবি জানিয়েছেন মানব বন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেন সাংবাদিকরা।

সাংবাদিক মাসুদ উল-হাসান বলেন, হামলাকারীরা প্রভাবশালী হওয়ায় আমি এখনো আসামীদের ভয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।

বকশীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবদুল লতিফ লায়ন বলেন, সাংবাদিক মাসুদ উল-হাসান একজন পেশাদার গুণী সাংবাদিক। তার উপর হামলাকারী আতিক সিদ্দিকী ও মাসুমা ইয়াসমিন স্মৃতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ভাংচুর মামলাসহ একাধিক মামলার আসামী। প্রয়াত সাংবাদিক গোলাম রব্বানী নাদিমকেও হত্যার উদ্দেশ্যে মধ্যবাজার থেকে ধরে এনে নিজ বাড়িতে আটকে বেদম মারপিট করেছিল । আজ একই কায়দায় তারা সাংবাদিক মাসুদের উপর হামলা চালিয়েছেন। এই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই এবং হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি।

বকশীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি যুগান্তর সাংবাদিক সরওয়ার জামান রতন এই ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, অনতিবিলম্বে সাংবাদিকের উপর হামলাকারীদের গ্রেপ্তার করতে হবে।

বকশীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আহাদ খাঁন বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। আইনী প্রক্রিয়া চলমান। অপর দিকে এ এসপি (সার্কেল) সুমন কান্তি চৌধুরী বলেন,সাংবাদিককে হামলা ও থানায় অভিযোগের বিষয়টি অবগত আছি,ঘটনা তদন্তে দ্রুত সময়ের মধ্যে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

সাংবাদিকের উপর হামলা। প্রতিবাদে দেশজুড়ে মানব বন্ধন

আপলোড সময় : ০৪:৫৪:০০ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ জুন ২০২৪

জামালপুরের বকশীগঞ্জে দৈনিক সমকালের সাংবাদিক মাসুদ উল হাসানের উপর হামলা, মারপিট, ক্যামেরা ছিনতাই ও মোটর সাইকেল ভাংচুর করা হয়েছে।শুক্রবার (৭ জুন) দিবাগত রাতে পৌর শহরের রাসেল আমিন মার্কেটের সামনে এই ঘটনা ঘটে।

জানা যায়,বকশীগঞ্জ উপজেলার সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাসুমা ইয়াসমিন স্মৃতি ও তার স্বামী আতিক সিদ্দিকী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ভাংচুরের মামলা ও চেক প্রতারণাসহ একাধিক মামলার আসামী।

নিজের কূ-কর্মের অপরাধের সংবাদ প্রকাশের বাধাগ্রস্থ করতেই সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাসুমা ইয়াছমিন স্মৃতি ও তার স্বামী আতিক সিদ্দিকী এই হামলার ঘটনা ঘটায়।

পরে এই ঘটনায় রাতেই নামীয় ৪ জনসহ অজ্ঞাতনামা আরো ৪-৫ জনকে আসামী করে বকশীগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন আহত সাংবাদিক মাসুদ উল হাসান।

উল্লেখ্য, শুক্রবার রাতে পৌর শহরের বাসস্ট্যান্ডে অফিস থেকে পেশাগত দায়িত্ব পালন শেষে মোটরসাইলে যোগে বাসায় ফিরছিলেন সাংবাদিক মাসুদ উল হাসান। দক্ষিন বাজার এলাকায় রাসেল আমিনের মার্কেটের সামনে পৌছাঁ মাত্র আগে থেকেই উৎপেতে থাকা সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মাসুমা ইয়াছমিন স্মৃতি ও তার স্বামী আতিক সিদ্দিকী, তার বাবা মজিবর রহমান,ভাই সজল মিয়াসহ অজ্ঞাত আরো ৮/৯ জন দুষ্কৃতকারীরা দেশীয় ধারালো অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সাংবাদিক মাসুদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এবং সাংবাদিক মাসুদকে চলন্ত মোটরসাইকেল থেকে ফেলে দিয়ে এলোপাথারি ভাবে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। এক পর্যায়ে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা চালায়। আতিকের হাতে থাকা ধারালো চাকু দিয়ে সাংবাদিক মাসুদকে হত্যার জন্য হাতে ও পিঠে আঘাত করে।

এ সময় মোটর সাইকেল ভাংচুর ও ক্যামেরা ছিনিয়ে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। পরে সাংবাদিক মাসুদের ডাকচিৎকারে পথচারী, সহকর্মী সাংবাদিক ও স্থানীয়রা এগিয়ে এসে তাদের কবল থেকে তাকে উদ্ধার করে বকশীগঞ্জ হাসপাতালে নিয়ে যায়।

এই ঘটনার প্রতিবাদে শনিবার সকালে শহরের বাসস্ট্যান্ডে এলাকায় সকল আসামীর গ্রেফতার দাবি জানিয়েছেন মানব বন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেন সাংবাদিকরা।

সাংবাদিক মাসুদ উল-হাসান বলেন, হামলাকারীরা প্রভাবশালী হওয়ায় আমি এখনো আসামীদের ভয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।

বকশীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবদুল লতিফ লায়ন বলেন, সাংবাদিক মাসুদ উল-হাসান একজন পেশাদার গুণী সাংবাদিক। তার উপর হামলাকারী আতিক সিদ্দিকী ও মাসুমা ইয়াসমিন স্মৃতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ভাংচুর মামলাসহ একাধিক মামলার আসামী। প্রয়াত সাংবাদিক গোলাম রব্বানী নাদিমকেও হত্যার উদ্দেশ্যে মধ্যবাজার থেকে ধরে এনে নিজ বাড়িতে আটকে বেদম মারপিট করেছিল । আজ একই কায়দায় তারা সাংবাদিক মাসুদের উপর হামলা চালিয়েছেন। এই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই এবং হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি।

বকশীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি যুগান্তর সাংবাদিক সরওয়ার জামান রতন এই ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, অনতিবিলম্বে সাংবাদিকের উপর হামলাকারীদের গ্রেপ্তার করতে হবে।

বকশীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আহাদ খাঁন বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। আইনী প্রক্রিয়া চলমান। অপর দিকে এ এসপি (সার্কেল) সুমন কান্তি চৌধুরী বলেন,সাংবাদিককে হামলা ও থানায় অভিযোগের বিষয়টি অবগত আছি,ঘটনা তদন্তে দ্রুত সময়ের মধ্যে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন