ঢাকা ১০:২৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কেরানীগঞ্জে ট্রাংকের ভেতর থেকে লাশ উদ্ধারের ঘটনায় গ্রেফতার ১

মো: শাহিন (নিজস্ব প্রতিবেদক)
মো: শাহিন (নিজস্ব প্রতিবেদক)
  • আপলোড সময় : ০৬:০০:১৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৫ জুলাই ২০২৪
  • / ২৮১ বার পড়া হয়েছে

ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে ট্রাংকের ভেতরে তোশক মোড়ানো অবস্থায় অজ্ঞাত এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় আল আমিন (২৫) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০।

আজ শুক্রবার বিকাল ৪টায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব-১০ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) ও সহকারী পুলিশ সুপার এম.জে. সোহেল। তিনি জানান , গত ২৩ জুন সকালে ঢাকা জেলার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার কোন্ডা ইউনিয়নের জাজিরা বোট সংলগ্ন ব্রিজের নিচে একটি বড় ট্রাংক স্থানীয় লোকজন দেখতে পেলে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এ ফোন দিয়ে থানায় অবহিত করে। পরে থানা পুলিশ সেখানে গিয়ে ট্রাংকটি উদ্ধার করে খুললে তোশক দিয়ে মোড়ানো অবস্থায় অজ্ঞাত এক ব্যক্তির মরদেহ পায়। তখন ধারণা করা হয় ২২ জুন রাত ৮ থেকে ১২টার মধ্যে যেকোনো সময় অজ্ঞাত সেই ব্যক্তিকে দুর্বৃত্তরা হত্যা করে তাকে তোশক দিয়ে মুড়িয়ে ট্রাংকভর্তি করে বর্ণিত স্থানে ফেলে দিয়ে গেছেন। মরদেহটি উদ্ধারের পর সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুত করে মরদেহের ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ্ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায় র্যাব। ইতোমধ্যে পুলিশ ফিঙ্গার প্রিন্টের মাধ্যমে লাশ সনাক্ত করতে সক্ষম হয় এবং নিশ্চিত হয় যে মরদেহটি পটুয়াখালী জেলার বাউফলের মৃত দেবেন্দ্র হাওলাদারের পুত্র দীপঙ্কর হাওলাদার ওরফে দিপু হাওলাদার ওরফে মো. সুমনের (৩৪)। এ ঘটনায় মা মিনতি হাওলাদার বাদী হয়ে আসামী অজ্ঞাত উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা করেন। মামলা হলে সন্দেহভাজন আসামি ও হত্যাকাণ্ডের কারণ সনাক্তকরণে কাজ শুরু করা হয়। এরপর সিসিটিভি ফুটেজ পর্যালোচনা ও তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় কয়েকজন সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে চিহ্নিত করতে সক্ষম হয় র্যাব। এ ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার রাতে মোহাম্মদপুরের পালপাড় বটতলা এলাকায় একটি অভিযান চালিয়ে সন্দেহভাজন মো. আল আমিনকে গ্রেফতার করা হয়।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

কেরানীগঞ্জে ট্রাংকের ভেতর থেকে লাশ উদ্ধারের ঘটনায় গ্রেফতার ১

আপলোড সময় : ০৬:০০:১৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৫ জুলাই ২০২৪

ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে ট্রাংকের ভেতরে তোশক মোড়ানো অবস্থায় অজ্ঞাত এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় আল আমিন (২৫) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০।

আজ শুক্রবার বিকাল ৪টায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব-১০ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) ও সহকারী পুলিশ সুপার এম.জে. সোহেল। তিনি জানান , গত ২৩ জুন সকালে ঢাকা জেলার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার কোন্ডা ইউনিয়নের জাজিরা বোট সংলগ্ন ব্রিজের নিচে একটি বড় ট্রাংক স্থানীয় লোকজন দেখতে পেলে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এ ফোন দিয়ে থানায় অবহিত করে। পরে থানা পুলিশ সেখানে গিয়ে ট্রাংকটি উদ্ধার করে খুললে তোশক দিয়ে মোড়ানো অবস্থায় অজ্ঞাত এক ব্যক্তির মরদেহ পায়। তখন ধারণা করা হয় ২২ জুন রাত ৮ থেকে ১২টার মধ্যে যেকোনো সময় অজ্ঞাত সেই ব্যক্তিকে দুর্বৃত্তরা হত্যা করে তাকে তোশক দিয়ে মুড়িয়ে ট্রাংকভর্তি করে বর্ণিত স্থানে ফেলে দিয়ে গেছেন। মরদেহটি উদ্ধারের পর সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুত করে মরদেহের ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ্ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায় র্যাব। ইতোমধ্যে পুলিশ ফিঙ্গার প্রিন্টের মাধ্যমে লাশ সনাক্ত করতে সক্ষম হয় এবং নিশ্চিত হয় যে মরদেহটি পটুয়াখালী জেলার বাউফলের মৃত দেবেন্দ্র হাওলাদারের পুত্র দীপঙ্কর হাওলাদার ওরফে দিপু হাওলাদার ওরফে মো. সুমনের (৩৪)। এ ঘটনায় মা মিনতি হাওলাদার বাদী হয়ে আসামী অজ্ঞাত উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা করেন। মামলা হলে সন্দেহভাজন আসামি ও হত্যাকাণ্ডের কারণ সনাক্তকরণে কাজ শুরু করা হয়। এরপর সিসিটিভি ফুটেজ পর্যালোচনা ও তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় কয়েকজন সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে চিহ্নিত করতে সক্ষম হয় র্যাব। এ ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার রাতে মোহাম্মদপুরের পালপাড় বটতলা এলাকায় একটি অভিযান চালিয়ে সন্দেহভাজন মো. আল আমিনকে গ্রেফতার করা হয়।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন