ঢাকা ০৮:৫৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

টঙ্গীতে ছাত্রলীগের পদ পাওয়ার জন্য দৌড়ঝাঁপ কিশোর গ্যাং লিডার

মো: সাদ্দাম হোসেন মুন্না খান (নিজস্ব প্রতিবেদক)
মো: সাদ্দাম হোসেন মুন্না খান (নিজস্ব প্রতিবেদক)
  • আপলোড সময় : ০৯:৪৮:২৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০২৩
  • / ২৭৭ বার পড়া হয়েছে

গাজীপুর মহানগরে টঙ্গী পশ্চিম থানাধীন এলাকার কিশোর গ্যাং লিডার ও মাদক মামলায় অভিযুক্ত, ছাত্রলীগের সভাপতি পদ পাওয়ার জন্য দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছে এ নিয়ে এলাকায় সমালোচনার ঝড়। পদ পেতে ইতোমধ্যে গাজীপুর মহানগরীর ছাত্রলীগের দফতরে জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন, শুরু করেছেন দৌড়ঝাঁপ। এমনি অভিযোগ উঠেছে টঙ্গী পশ্চিম থানা ছাত্রলীগের সভাপতি পদপ্রার্থী মোঃ রাশেদ খান মেনন এর বিরুদ্ধে একাধিক মাদক মামলা ও কিশোর গ্যাং মামলা রয়েছে বলে জানা যায়, গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গী পূর্ব ও পশ্চিম থানা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত করে দেওয়ার পর নতুন কমিটি ঘোষণার জন্য পদপ্রার্থীদের জীবন বৃত্তান্ত আহ্বান করা হয়। এর পর থেকেই সাবেক ছাত্রলীগের বিতর্কিত এই একাধিক মামলার আসামী নতুন করে পদে আসার জন্য দৌড়-ঝাঁপ শুরু করেছেন । গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকায় ও টঙ্গী পশ্চিম থানা এলাকায় খোঁজ খবর নিয়ে জানা যে রাশেদ খান মেনন এর বাবা নামকরা মাদক ব্যবসায়ী ছিলেন মোঃ শাহিন মিয়া ওরফে কাউয়া শাহিন। এবং এক সময় ছিলেন জাতীয় নেতা শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার হত্যা মামলার প্রধান আসামি নুরুল ইসলাম সরকারের কর্মচারী। সেই শাহীন মিয়ার ছেলে দেওড়া মিত্তিবাড়ি এলাকার ত্রাস, ও কিশোর গ্যাং লিডার, গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকায় কেউ নতুন বাড়িঘর করতে গেলেই তাকে চাঁদা দিতে হয়, এবং তার নেতৃত্বে এলাকায় জমজমাট ভাবে চলছে মাদক ব্যবসাসহ দেহ ব্যবসা বিভিন্ন অপকর্ম পরিচালোনা করা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে সেই রাশেদ খান মেনন টঙ্গী পশ্চিম থানা ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী। তার বিরুদ্ধে টঙ্গী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছিল। এছাড়াও সাংবাদিকের মোবাইল ছিনতাই ও কিশোর গ্যাংয়ের মারামারির ঘটনাও ঘটে সেই ঘটনা সূত্রে টঙ্গী পশ্চিম থানায় পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেন । এ ছারাও বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য জিবন বাজি রেখে যুদ্ধ করেছিলেন কিন্তু বীর মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের উপর চালায় অত্যাচার এই অত্যাচার সইতে না পেরে এবং কিশোর গ্যাং লিডার রাশেদ খান মেনন এর বাবার বিরুদ্ধে , র‍্যাব হেডকোয়ার্টারে অভিযোগ জমা দেন বীর মুক্তিযোদ্ধার পরিবার।ও তার বাবার বিরুদ্ধে সাবেক টঙ্গী মডেল থানা এবং বর্তমান টঙ্গী পশ্চিম থানায় একাধিক মাদকের মামলা রয়েছে। সে যদি ছাত্রলীগের সভাপতি হয় তাহলে মাদক, কিশোর গ্যাং, চাঁদাবাজি, ছিনতাই, ভূমিদস্যতা সহ বিভিন্ন অপরাধ সংগঠিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এ বিষয়ে জানতে রাশেদ খাঁন মেনন এর মুঠোফোন একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি। এই অপরাধীর বিরুদ্ধে গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকা থেকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক মানুষ সহ ছাত্রলীগের একাধিক সাবেক নেতাকর্মীরা অভিযোগ করেন, যে বিবাহিত, ছাত্রত্ব নেই,কিশোর গ্যাং লিডার ও মাদক ব্যবসার গডফাদার একাধিক মামলার আসামীরা যদি ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসে তাহলে কমিটি বিতর্কের মধ্যে পড়ে যাবে। এছাড়াও গঠনতন্ত্রে স্পষ্ট করেই বলা আছে, বিবাহিত বা ছাত্রত্ব নেই এমন কেউ পদে তো দূরের কথা সদস্যই থাকতে পারবে না। আর মাদক মামলা ও কিশোর গ্যাং লিডার এবং চার্জশিট ভুক্ত মাদক মামলার আসামির সভাপতি পদে আসা সম্ভব নয়। এ বিষয়ে গাজীপুর মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি মশিউর রহমান সরকার বাবুর সাথে তাঁর ব্যক্তিগত মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি এবং সরাসরি যোগাযোগ করা হলে তিনি কিশোর গ্যাং লিডার ও মাদক ব্যবসায়ী, একাধিক মামলার আসামী রাশেদ খাঁন মেনন এর বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি( ধারাবাহিক চলবে)

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

টঙ্গীতে ছাত্রলীগের পদ পাওয়ার জন্য দৌড়ঝাঁপ কিশোর গ্যাং লিডার

আপলোড সময় : ০৯:৪৮:২৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০২৩

গাজীপুর মহানগরে টঙ্গী পশ্চিম থানাধীন এলাকার কিশোর গ্যাং লিডার ও মাদক মামলায় অভিযুক্ত, ছাত্রলীগের সভাপতি পদ পাওয়ার জন্য দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছে এ নিয়ে এলাকায় সমালোচনার ঝড়। পদ পেতে ইতোমধ্যে গাজীপুর মহানগরীর ছাত্রলীগের দফতরে জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন, শুরু করেছেন দৌড়ঝাঁপ। এমনি অভিযোগ উঠেছে টঙ্গী পশ্চিম থানা ছাত্রলীগের সভাপতি পদপ্রার্থী মোঃ রাশেদ খান মেনন এর বিরুদ্ধে একাধিক মাদক মামলা ও কিশোর গ্যাং মামলা রয়েছে বলে জানা যায়, গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গী পূর্ব ও পশ্চিম থানা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত করে দেওয়ার পর নতুন কমিটি ঘোষণার জন্য পদপ্রার্থীদের জীবন বৃত্তান্ত আহ্বান করা হয়। এর পর থেকেই সাবেক ছাত্রলীগের বিতর্কিত এই একাধিক মামলার আসামী নতুন করে পদে আসার জন্য দৌড়-ঝাঁপ শুরু করেছেন । গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকায় ও টঙ্গী পশ্চিম থানা এলাকায় খোঁজ খবর নিয়ে জানা যে রাশেদ খান মেনন এর বাবা নামকরা মাদক ব্যবসায়ী ছিলেন মোঃ শাহিন মিয়া ওরফে কাউয়া শাহিন। এবং এক সময় ছিলেন জাতীয় নেতা শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার হত্যা মামলার প্রধান আসামি নুরুল ইসলাম সরকারের কর্মচারী। সেই শাহীন মিয়ার ছেলে দেওড়া মিত্তিবাড়ি এলাকার ত্রাস, ও কিশোর গ্যাং লিডার, গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকায় কেউ নতুন বাড়িঘর করতে গেলেই তাকে চাঁদা দিতে হয়, এবং তার নেতৃত্বে এলাকায় জমজমাট ভাবে চলছে মাদক ব্যবসাসহ দেহ ব্যবসা বিভিন্ন অপকর্ম পরিচালোনা করা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে সেই রাশেদ খান মেনন টঙ্গী পশ্চিম থানা ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী। তার বিরুদ্ধে টঙ্গী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছিল। এছাড়াও সাংবাদিকের মোবাইল ছিনতাই ও কিশোর গ্যাংয়ের মারামারির ঘটনাও ঘটে সেই ঘটনা সূত্রে টঙ্গী পশ্চিম থানায় পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেন । এ ছারাও বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য জিবন বাজি রেখে যুদ্ধ করেছিলেন কিন্তু বীর মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের উপর চালায় অত্যাচার এই অত্যাচার সইতে না পেরে এবং কিশোর গ্যাং লিডার রাশেদ খান মেনন এর বাবার বিরুদ্ধে , র‍্যাব হেডকোয়ার্টারে অভিযোগ জমা দেন বীর মুক্তিযোদ্ধার পরিবার।ও তার বাবার বিরুদ্ধে সাবেক টঙ্গী মডেল থানা এবং বর্তমান টঙ্গী পশ্চিম থানায় একাধিক মাদকের মামলা রয়েছে। সে যদি ছাত্রলীগের সভাপতি হয় তাহলে মাদক, কিশোর গ্যাং, চাঁদাবাজি, ছিনতাই, ভূমিদস্যতা সহ বিভিন্ন অপরাধ সংগঠিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এ বিষয়ে জানতে রাশেদ খাঁন মেনন এর মুঠোফোন একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি। এই অপরাধীর বিরুদ্ধে গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকা থেকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক মানুষ সহ ছাত্রলীগের একাধিক সাবেক নেতাকর্মীরা অভিযোগ করেন, যে বিবাহিত, ছাত্রত্ব নেই,কিশোর গ্যাং লিডার ও মাদক ব্যবসার গডফাদার একাধিক মামলার আসামীরা যদি ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসে তাহলে কমিটি বিতর্কের মধ্যে পড়ে যাবে। এছাড়াও গঠনতন্ত্রে স্পষ্ট করেই বলা আছে, বিবাহিত বা ছাত্রত্ব নেই এমন কেউ পদে তো দূরের কথা সদস্যই থাকতে পারবে না। আর মাদক মামলা ও কিশোর গ্যাং লিডার এবং চার্জশিট ভুক্ত মাদক মামলার আসামির সভাপতি পদে আসা সম্ভব নয়। এ বিষয়ে গাজীপুর মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি মশিউর রহমান সরকার বাবুর সাথে তাঁর ব্যক্তিগত মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি এবং সরাসরি যোগাযোগ করা হলে তিনি কিশোর গ্যাং লিডার ও মাদক ব্যবসায়ী, একাধিক মামলার আসামী রাশেদ খাঁন মেনন এর বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি( ধারাবাহিক চলবে)

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন