ঢাকা ০৯:১৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ডেমরায় ঐতিহ্যবাহী ‘সাকরাইন ঘুড়ি উৎসব’ ২০২৪ পালিত

মোঃ সালে আহমেদ (নিজস্ব প্রতিবেদক)
মোঃ সালে আহমেদ (নিজস্ব প্রতিবেদক)
  • আপলোড সময় : ০৮:১৫:২৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২৪
  • / ৭৮৩ বার পড়া হয়েছে

প্রতি বছরের মতো এবারও পুরান ঢাকায় ঐতিহ্যবাহী ‘সাকরাইন ঘুড়ি উৎসব’ পালিত হয়েছে। ‘এসো ওড়াই ঘুড়ি, ঐতিহ্য লালন করি’- স্লোগানে আয়োজিত এই উৎসব ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিষ্টার শেখ ফজলে নুর তাপসের নির্দেশে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কপোরেশনের সব গুলো ওয়ার্ডের সাথে তাল মিলিয়ে ৬৬ নং ওয়ার্ডে চতুর্থ বারের মতো ও একযোগে সাকরাইনের আয়োজন করা হয়।

রবিবার(১৪ জানুয়ারী) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত শত শত রং-বেরঙের ঘুড়ি আকাশে শোভা পায়। বাংলাদেশের প্রাচীন উৎসবগুলোর মধ্যে সাকরাইন অন্যতম। এটি ঘুড়ি উৎসব বা পৌষ সংক্রান্তি নামেও পরিচিত। পৌষ মাসের শেষে ও মাঘ মাসের প্রথম দিনে পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী এই উৎসব উদযাপন করা হয়। শনিবার ডেমরার বিভিন্ন এলাকায় এ উৎসব ছিল।মূলত ঐতিহ্য ধরে রাখার জন্যই এই প্রাচীন উইসবটি পালনের সিদ্ধান্ত হয়।

ডেমরার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দেখা গেছে, ভোরের কুয়াশার রেশ কাটতে না কাটতেই ছাদে ছাদে শুরু হয় ঘুড়ি ওড়ানো ও ঘুড়ির কাটাকাটি খেলা। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ে উৎসবের জৌলুশ। বিভিন্ন বাড়ির ছাদে বাজছে আধুনিক সাউন্ড সিস্টেমে দেশি-বিদেশি গান। স্থানীয় লোকজন জানান, সন্ধ্যায় ছিল আগুন নিয়ে খেলা, আতশবাজি ও ফানুস ওড়ানো।

এদিন সকালে সাকরাইন উৎসবের উদ্বোধন করেন ঢাকা দক্ষিণ সিটির মেয়র ব্যারিষ্টার শেখ ফজলে নুর তাপস।

ঢাকা দক্ষিণ সিটির কর্পোরেশনের ৬৬ নং ওয়ার্ডের সাকরাইন উৎসবের অায়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ৬৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মতিন সাউদ।এসময় অন্যান্যদের মধ্যে ছিলেন, ডগাইর রুস্তম আলী স্কুলের প্রধান শিক্ষক মজিবুর রহমান রতন,ডেমরা থানা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সোহাগ সাউদ,৬৬ নং ওয়ার্ড যুবলীগ নেতা আনোয়ার হোসেন আনু মুন্সি, কাউন্সিলর সচিব লিটু সাউদ, যুবলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান,
৬৬ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবির আহমেদ রাতুলসহ স্থানীয় গন্যমান্য ও সামাজিক নেতৃবৃন্দ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মতিন সাউদ বলেন, ঐতিহ্যের সুন্দর, সচল, সুশাসিত ও উন্নত ঢাকা গড়ে তোলার যে রূপরেখা মেয়র মহোদয় ঘোষণা করেছেন, তারই আলোকে পৌষ সংক্রান্তিতে সাকরাইন তথা ঘুড়ি উৎসব আয়োজন। আমরা বিশ্বাস করি, এই আয়োজন পুরান ঢাকার ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও ফিরিয়ে আনতে একটি মাইলফলক হিসেবে ভূমিকা রাখবে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

ডেমরায় ঐতিহ্যবাহী ‘সাকরাইন ঘুড়ি উৎসব’ ২০২৪ পালিত

আপলোড সময় : ০৮:১৫:২৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২৪

প্রতি বছরের মতো এবারও পুরান ঢাকায় ঐতিহ্যবাহী ‘সাকরাইন ঘুড়ি উৎসব’ পালিত হয়েছে। ‘এসো ওড়াই ঘুড়ি, ঐতিহ্য লালন করি’- স্লোগানে আয়োজিত এই উৎসব ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিষ্টার শেখ ফজলে নুর তাপসের নির্দেশে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কপোরেশনের সব গুলো ওয়ার্ডের সাথে তাল মিলিয়ে ৬৬ নং ওয়ার্ডে চতুর্থ বারের মতো ও একযোগে সাকরাইনের আয়োজন করা হয়।

রবিবার(১৪ জানুয়ারী) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত শত শত রং-বেরঙের ঘুড়ি আকাশে শোভা পায়। বাংলাদেশের প্রাচীন উৎসবগুলোর মধ্যে সাকরাইন অন্যতম। এটি ঘুড়ি উৎসব বা পৌষ সংক্রান্তি নামেও পরিচিত। পৌষ মাসের শেষে ও মাঘ মাসের প্রথম দিনে পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী এই উৎসব উদযাপন করা হয়। শনিবার ডেমরার বিভিন্ন এলাকায় এ উৎসব ছিল।মূলত ঐতিহ্য ধরে রাখার জন্যই এই প্রাচীন উইসবটি পালনের সিদ্ধান্ত হয়।

ডেমরার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দেখা গেছে, ভোরের কুয়াশার রেশ কাটতে না কাটতেই ছাদে ছাদে শুরু হয় ঘুড়ি ওড়ানো ও ঘুড়ির কাটাকাটি খেলা। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ে উৎসবের জৌলুশ। বিভিন্ন বাড়ির ছাদে বাজছে আধুনিক সাউন্ড সিস্টেমে দেশি-বিদেশি গান। স্থানীয় লোকজন জানান, সন্ধ্যায় ছিল আগুন নিয়ে খেলা, আতশবাজি ও ফানুস ওড়ানো।

এদিন সকালে সাকরাইন উৎসবের উদ্বোধন করেন ঢাকা দক্ষিণ সিটির মেয়র ব্যারিষ্টার শেখ ফজলে নুর তাপস।

ঢাকা দক্ষিণ সিটির কর্পোরেশনের ৬৬ নং ওয়ার্ডের সাকরাইন উৎসবের অায়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ৬৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মতিন সাউদ।এসময় অন্যান্যদের মধ্যে ছিলেন, ডগাইর রুস্তম আলী স্কুলের প্রধান শিক্ষক মজিবুর রহমান রতন,ডেমরা থানা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সোহাগ সাউদ,৬৬ নং ওয়ার্ড যুবলীগ নেতা আনোয়ার হোসেন আনু মুন্সি, কাউন্সিলর সচিব লিটু সাউদ, যুবলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান,
৬৬ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবির আহমেদ রাতুলসহ স্থানীয় গন্যমান্য ও সামাজিক নেতৃবৃন্দ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মতিন সাউদ বলেন, ঐতিহ্যের সুন্দর, সচল, সুশাসিত ও উন্নত ঢাকা গড়ে তোলার যে রূপরেখা মেয়র মহোদয় ঘোষণা করেছেন, তারই আলোকে পৌষ সংক্রান্তিতে সাকরাইন তথা ঘুড়ি উৎসব আয়োজন। আমরা বিশ্বাস করি, এই আয়োজন পুরান ঢাকার ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও ফিরিয়ে আনতে একটি মাইলফলক হিসেবে ভূমিকা রাখবে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন