ঢাকা ০৯:১৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কথিত সাংবাদিক সেলিম ব্যাপারীর বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির একাধিক অভিযোগ।

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপলোড সময় : ০৮:১৮:৩৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ মার্চ ২০২৪
  • / ২৬৭ বার পড়া হয়েছে

নারায়ণগঞ্জের গণমাধ্যমকর্মীরা বিভিন্ন জায়গায় এই কথিত সাংবাদিক সেলিম ব্যাপারী গংদের অপকর্মের কারণে বিভিন্ন জায়গায় প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে। বিষয়টি আমলে নিয়ে তদন্ত শুরু করেন, মুলধারার গণমাধ্যম কর্মীরা।

একে একে বেরিয়ে এসেছে থলের বিড়াল! কথিত সেলিম ব্যাপারী সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে সরকারী অফিস, পাবলিক সেবা প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে প্রতি মাসে মাসোহারা তুলছেন। মাসোহারার টাকা না পেলে নানান ধরণের হয়রানী করার অভিযোগ রয়েছে।

সাংবাদিকতার পরিচয়ে এমন পদস্খলন মেনে নিতে পারছে না সুশীল সাংবাদিক মহল। দৈনিক আমার সংগ্রাম পত্রিকার স্টিকার ব্যবহার হচ্ছে ব্যাটারী চালিত অটো রিকশায়। ১৫০টি অটো যা মহা সড়কে অবৈধ, অটো রিকশার গায়ে দৈনিক আমার সংগ্রাম পত্রিকার স্টিকার বানিজ্য কতটুকু যুক্তিযুক্ত এমন প্রশ্নের জবাবে প্রাক্তন সাংবাদিকরা বলছেন, দেশ ও দশের ব্যাপক ক্ষতি সাধন করছে এসব নামধারী সাংবাদিকরা।
এদেরকে দ্রুত আইনের আওতায় নিয়ে আসার জোর দাবী নারায়ণগঞ্জের সাংবাদিকদের।

এই সেলিম ব্যাপারী একসময় সিকিউরিটি গার্ডের শেয়ার ক্রয় করার তথ্য পাওয়া যায়, এরপর থেকে দৈনিক আমার সংগ্রাম, সাপ্তাহিক আইন সমাজ পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক পরিচয় দিয়ে লোক সমাজে আতংক সৃষ্টি করছেন। এখানেই শেষ নয় বিদেশে লোক পাঠানোর কথা বলে লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করেছে।

সাধারণ মানুষের কাছে ভুয়া পরিচয় দিয়ে জমির নামজারী করে দেওয়ার কথা বলে লক্ষ টাকা চুক্তি, অতপর, টাকা নিয়ে ছলচাতুরী, ফেরত চাইলে হুমকি ধমকি দিয়ে যাচ্ছে। ভয়ে চুপ থাকছেন অনেকে আবার কেহ মুখ খুললে অসাধু প্রশাসন দিয়ে হয়রানী করার অভিযোগ রয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে একচ্ছত্র আধিপত্ত বিস্তার করার চেষ্টা করছেন,
সাম্প্রতিক সময়ে পাসপোর্ট অফিসের কর্মকর্তা কর্মচারীদের রাস্তায় ব্যাগ চেক করার মত ঘটনার জন্ম দিয়েছেন।
থানার দালালী সহ আইন শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহীনির নামকরণ করে মানুষকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে যাচ্ছে।
এই হেলাল ব্যাপারীর সাথে রয়েছে একশ্রেনীর চাঁদাবাজ মহল যারা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পরিচয় দিয়ে সাংবাদিকতাকে কলুষিত করার অপচেষ্টায় মত্ত হয়ে উঠেছে।

ভুক্তভোগী পপির চোখের পানি মুছে শেষ করতে পারছে না, তার কষ্টার্জিত উপার্জনের টাকা আত্মসাৎ করে দিবালোকে বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। টাকা ফেরৎ চাইলে মান সম্মান নষ্ট করে নিউজ করার হুমকি দিচ্ছে।
ভুক্তভোগী লিটন মিয়ার কাছ থেকে ১ লক্ষ টাকা নামজারীর করে দেওয়ার কথা বলে আত্মসাৎ করেছেন। টাকা ফেরৎ চাইলে হুমকি ধমকি দিয়ে যাচ্ছে।

গার্মেন্টস শ্রমিক মরিয়মের কাছ থেকে পুলিশ রিপোর্ট করে দেওয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাৎ করেছে।
চাষাড়া, মুক্তারপুর, সাইনবোর্ড লাইনে চলমান চাঁদা বানিজ্য বন্ধ করা যাচ্ছে না এ সমস্থ কথিত সাংবাদিক পরিচয়ধারী ছদ্মবেশি চাঁদাবাজদের কারণে।
এসব ভুঁইফোঁড় সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে শক্ত হাতে রুখে দাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক ফোরামের নেতৃবৃন্দ। তারা আরও বলেন, মুলধারার গণমাধ্যম সমাজে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে, যারা নিজেদের অন্যায় অপরাধ ঢেকে রাখার কাজে সাংবাদিকতার পরিচয় ব্যবহার করছে তাদের মুখোশ উন্মোচন সহ সকল প্রকার আইনি ব্যবস্থা নিতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহীনির দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

কথিত সাংবাদিক সেলিম ব্যাপারীর বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির একাধিক অভিযোগ।

আপলোড সময় : ০৮:১৮:৩৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ মার্চ ২০২৪

নারায়ণগঞ্জের গণমাধ্যমকর্মীরা বিভিন্ন জায়গায় এই কথিত সাংবাদিক সেলিম ব্যাপারী গংদের অপকর্মের কারণে বিভিন্ন জায়গায় প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে। বিষয়টি আমলে নিয়ে তদন্ত শুরু করেন, মুলধারার গণমাধ্যম কর্মীরা।

একে একে বেরিয়ে এসেছে থলের বিড়াল! কথিত সেলিম ব্যাপারী সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে সরকারী অফিস, পাবলিক সেবা প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে প্রতি মাসে মাসোহারা তুলছেন। মাসোহারার টাকা না পেলে নানান ধরণের হয়রানী করার অভিযোগ রয়েছে।

সাংবাদিকতার পরিচয়ে এমন পদস্খলন মেনে নিতে পারছে না সুশীল সাংবাদিক মহল। দৈনিক আমার সংগ্রাম পত্রিকার স্টিকার ব্যবহার হচ্ছে ব্যাটারী চালিত অটো রিকশায়। ১৫০টি অটো যা মহা সড়কে অবৈধ, অটো রিকশার গায়ে দৈনিক আমার সংগ্রাম পত্রিকার স্টিকার বানিজ্য কতটুকু যুক্তিযুক্ত এমন প্রশ্নের জবাবে প্রাক্তন সাংবাদিকরা বলছেন, দেশ ও দশের ব্যাপক ক্ষতি সাধন করছে এসব নামধারী সাংবাদিকরা।
এদেরকে দ্রুত আইনের আওতায় নিয়ে আসার জোর দাবী নারায়ণগঞ্জের সাংবাদিকদের।

এই সেলিম ব্যাপারী একসময় সিকিউরিটি গার্ডের শেয়ার ক্রয় করার তথ্য পাওয়া যায়, এরপর থেকে দৈনিক আমার সংগ্রাম, সাপ্তাহিক আইন সমাজ পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক পরিচয় দিয়ে লোক সমাজে আতংক সৃষ্টি করছেন। এখানেই শেষ নয় বিদেশে লোক পাঠানোর কথা বলে লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করেছে।

সাধারণ মানুষের কাছে ভুয়া পরিচয় দিয়ে জমির নামজারী করে দেওয়ার কথা বলে লক্ষ টাকা চুক্তি, অতপর, টাকা নিয়ে ছলচাতুরী, ফেরত চাইলে হুমকি ধমকি দিয়ে যাচ্ছে। ভয়ে চুপ থাকছেন অনেকে আবার কেহ মুখ খুললে অসাধু প্রশাসন দিয়ে হয়রানী করার অভিযোগ রয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে একচ্ছত্র আধিপত্ত বিস্তার করার চেষ্টা করছেন,
সাম্প্রতিক সময়ে পাসপোর্ট অফিসের কর্মকর্তা কর্মচারীদের রাস্তায় ব্যাগ চেক করার মত ঘটনার জন্ম দিয়েছেন।
থানার দালালী সহ আইন শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহীনির নামকরণ করে মানুষকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে যাচ্ছে।
এই হেলাল ব্যাপারীর সাথে রয়েছে একশ্রেনীর চাঁদাবাজ মহল যারা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পরিচয় দিয়ে সাংবাদিকতাকে কলুষিত করার অপচেষ্টায় মত্ত হয়ে উঠেছে।

ভুক্তভোগী পপির চোখের পানি মুছে শেষ করতে পারছে না, তার কষ্টার্জিত উপার্জনের টাকা আত্মসাৎ করে দিবালোকে বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। টাকা ফেরৎ চাইলে মান সম্মান নষ্ট করে নিউজ করার হুমকি দিচ্ছে।
ভুক্তভোগী লিটন মিয়ার কাছ থেকে ১ লক্ষ টাকা নামজারীর করে দেওয়ার কথা বলে আত্মসাৎ করেছেন। টাকা ফেরৎ চাইলে হুমকি ধমকি দিয়ে যাচ্ছে।

গার্মেন্টস শ্রমিক মরিয়মের কাছ থেকে পুলিশ রিপোর্ট করে দেওয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাৎ করেছে।
চাষাড়া, মুক্তারপুর, সাইনবোর্ড লাইনে চলমান চাঁদা বানিজ্য বন্ধ করা যাচ্ছে না এ সমস্থ কথিত সাংবাদিক পরিচয়ধারী ছদ্মবেশি চাঁদাবাজদের কারণে।
এসব ভুঁইফোঁড় সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে শক্ত হাতে রুখে দাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক ফোরামের নেতৃবৃন্দ। তারা আরও বলেন, মুলধারার গণমাধ্যম সমাজে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে, যারা নিজেদের অন্যায় অপরাধ ঢেকে রাখার কাজে সাংবাদিকতার পরিচয় ব্যবহার করছে তাদের মুখোশ উন্মোচন সহ সকল প্রকার আইনি ব্যবস্থা নিতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহীনির দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন