ঢাকা ১১:১১ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাবার চিকিৎসার জন্য কিডনি বিক্রি করতে চায় আকাশ

রাকিবুল হাসান রাকিব (ক্যাম্পাস প্রতিনিধি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়)
রাকিবুল হাসান রাকিব (ক্যাম্পাস প্রতিনিধি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়)
  • আপলোড সময় : ০৪:১৩:৪২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৫ মে ২০২৪
  • / ৩৩১ বার পড়া হয়েছে

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধিঃ হৃদরোগে আক্রান্ত বাবার চিকিৎসার জন্য নিজের কিডনি বিক্রি করতে চায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ফতেহ আলী খান আকাশ।

মঙ্গলবার (১৪ মে) তার নিজস্ব ফেসবুক একাউন্ট থেকে কিডনি বিক্রি করার সহযোগিতা চেয়ে একটি পোস্ট শেয়ার করেন তিনি।

ফেসবুক পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘আব্বুর হার্টে ব্লক ধরা পড়েছে। অক্সিজেন মিটার ৩৫% এ নেমে আসছে। জরুরি ভিত্তিতে ভর্তি করাতে হবে। ডাক্তার বলছে পেইসমেকার লাগাতে হবে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব। কিন্তু এই মুহূর্তে পেইসমেকার লাগানোর মত এত টাকা আমার কাছে নাই। তাই আমি আমার একটা কিডনি বিক্রি করে দিতে চাচ্ছি। ঢাকায় কোথায় কিডনি বিক্রি হয়? এক কিডনি নিয়ে বেঁচে থাকতে পারবো, আব্বুকেও বাঁচাতে পারবো।’

এ বিষয় ফাতেহ আলি খান আকাশ বলেন, বাবার হার্টে ব্লক ধরা পড়েছে। হার্ট রেট ৩৫% এ নেমে আসায় ডাক্তার দ্রুত সময়ের মধ্যে পেসমেকার বসাতে বলছে। পেসমেকার ও অপারেশন চার্যসহ ৫ লক্ষ টাকা খরচ হবে যা ঐ মূহুর্তে আমার পরবারের কাছে নেই। তাই কিডনি বিক্রি করতে ফেসবুকে পোস্ট দেওয়া। কিডনি বিক্রি করে হলেও আমি আমার বাবাকে বাঁচাতে চাই।

তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।
সাহায্য পাঠানোর জন্য ফাতেহ আলী খানের বিকাশ: 01799510783, নগদ: 01603581638, ডিবিবিএল: 7017341975820 এ নাম্বার গুলো ব্যবহার করা যাবে।

উল্লেখ্য, আকাশের বাবা হায়দার আলি খান বর্তমানে জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটে ভর্তি আছে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

বাবার চিকিৎসার জন্য কিডনি বিক্রি করতে চায় আকাশ

আপলোড সময় : ০৪:১৩:৪২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৫ মে ২০২৪

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধিঃ হৃদরোগে আক্রান্ত বাবার চিকিৎসার জন্য নিজের কিডনি বিক্রি করতে চায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ফতেহ আলী খান আকাশ।

মঙ্গলবার (১৪ মে) তার নিজস্ব ফেসবুক একাউন্ট থেকে কিডনি বিক্রি করার সহযোগিতা চেয়ে একটি পোস্ট শেয়ার করেন তিনি।

ফেসবুক পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘আব্বুর হার্টে ব্লক ধরা পড়েছে। অক্সিজেন মিটার ৩৫% এ নেমে আসছে। জরুরি ভিত্তিতে ভর্তি করাতে হবে। ডাক্তার বলছে পেইসমেকার লাগাতে হবে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব। কিন্তু এই মুহূর্তে পেইসমেকার লাগানোর মত এত টাকা আমার কাছে নাই। তাই আমি আমার একটা কিডনি বিক্রি করে দিতে চাচ্ছি। ঢাকায় কোথায় কিডনি বিক্রি হয়? এক কিডনি নিয়ে বেঁচে থাকতে পারবো, আব্বুকেও বাঁচাতে পারবো।’

এ বিষয় ফাতেহ আলি খান আকাশ বলেন, বাবার হার্টে ব্লক ধরা পড়েছে। হার্ট রেট ৩৫% এ নেমে আসায় ডাক্তার দ্রুত সময়ের মধ্যে পেসমেকার বসাতে বলছে। পেসমেকার ও অপারেশন চার্যসহ ৫ লক্ষ টাকা খরচ হবে যা ঐ মূহুর্তে আমার পরবারের কাছে নেই। তাই কিডনি বিক্রি করতে ফেসবুকে পোস্ট দেওয়া। কিডনি বিক্রি করে হলেও আমি আমার বাবাকে বাঁচাতে চাই।

তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।
সাহায্য পাঠানোর জন্য ফাতেহ আলী খানের বিকাশ: 01799510783, নগদ: 01603581638, ডিবিবিএল: 7017341975820 এ নাম্বার গুলো ব্যবহার করা যাবে।

উল্লেখ্য, আকাশের বাবা হায়দার আলি খান বর্তমানে জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটে ভর্তি আছে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন