ঢাকা ০৬:৫৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কেরানীগঞ্জে মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অমান্য করে স্কুল চালু,অবিভাবকদের ক্ষোভ

মো: শাহিন (নিজস্ব প্রতিবেদক)
মো: শাহিন (নিজস্ব প্রতিবেদক)
  • আপলোড সময় : ০৭:৩০:৩১ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪
  • / ২৩৯ বার পড়া হয়েছে

ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অমান্য করে স্কুল খোলা রেখেছেন হাজী রফিক চাঁন মোলা উচ্চ বিদ্যালয়। দেশজুড়ে বইছে তীব্র তাপপ্রবাহ। দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় যশোরে ৪২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। চলমান এই তাপপ্রবাহের কারণে প্রাথমিক, মাধ্যমিক স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরির সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি ঘোষণা করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়। আগামী ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর ছুটি থাকবে। কিন্তু মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অমান্য করে ও স্বাস্থ্যর ঝুঁকি নিয়ে ক্লাস নিচ্ছেন হাজী রফিক চাঁন মোল্লা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাইফুল ইসলাম মহসীন। স্কুল খোলা রাখায় অবিভাবকদের মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক এক অভিভাবক বলেন, দেশজুড়ে বইছে তীব্র তাপপ্রবাহের কারনে স্কুল বন্ধ রাখার সিন্ধান্ত নিয়েছে সরকার কিন্তু সরকারী নির্দেশনা অমান্য করে স্কুল খোলা রাখা ঠিক হয়নি প্রচন্ড গরমে ছেলে স্কুলে যেতে চায় না। জোর করে স্কুল পাঠিয়েছি নাহলে তো ছেলে অন্যদের তুলনায় পিছিয়ে যাবে। কিন্তু স্কুল ছুটির পর গরমের মধ্যে রাস্তা দিয়ে বাসায় এসে অস্থির হয়ে পড়ছে।

নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক এক শিক্ষার্থী বলেন, গরমের মধ্যে ক্লাসে আমরা অস্থির হয়ে পড়ি। প্রচণ্ড দাবদাহের কারণে ছাত্রছাত্রীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিষয়টি বিবেচনায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি ঘোষণা করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়।কিন্তু সরকারি সিদ্ধান্ত অমান্য করে চলছে প্লে থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত ক্লাস। স্কুল ১১টায় যখন স্কুল ছুটি হয় তখন প্রচন্ড রৌদ্র ও গরম থাকে। প্রচন্ড রৌদ্র ও গরম মধ্যে হেটে বাসায় এসে অসুস্থ হয়ে পড়ি। প্রতিদিন স্কুলে যেতে বলা হয়েছে।

সরকারি সিদ্ধান্ত অমান্য করে স্কুল খোলা রাখা বিষয়ে জানতে চাইলে হাজী রফিক চাঁন মোল্লা উচ্চ বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সাইফুল ইসলাম মহসীন বলেন,আমরা সকাল ৮টা থেকে ১১টা পর্যন্ত ক্লাস চালু রেখেছি। আমরা স্কুল কমিটির সাথে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবো স্কুল খোলা রাখবো নাকি বন্ধ থাকবে।

কেরানীগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কামরুন নাহার বলেন, কোনোভাবেই সরকারি আদেশ অমান্য করার সুযোগ নেই। তাঁরা কেন সরকারি আদেশ অমান্য করে স্কুল খোলা রেখেছে। অবশ্যই তাদরে বিরুদ্ধে
যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

কেরানীগঞ্জে মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অমান্য করে স্কুল চালু,অবিভাবকদের ক্ষোভ

আপলোড সময় : ০৭:৩০:৩১ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪

ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অমান্য করে স্কুল খোলা রেখেছেন হাজী রফিক চাঁন মোলা উচ্চ বিদ্যালয়। দেশজুড়ে বইছে তীব্র তাপপ্রবাহ। দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় যশোরে ৪২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। চলমান এই তাপপ্রবাহের কারণে প্রাথমিক, মাধ্যমিক স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরির সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি ঘোষণা করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়। আগামী ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর ছুটি থাকবে। কিন্তু মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অমান্য করে ও স্বাস্থ্যর ঝুঁকি নিয়ে ক্লাস নিচ্ছেন হাজী রফিক চাঁন মোল্লা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাইফুল ইসলাম মহসীন। স্কুল খোলা রাখায় অবিভাবকদের মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক এক অভিভাবক বলেন, দেশজুড়ে বইছে তীব্র তাপপ্রবাহের কারনে স্কুল বন্ধ রাখার সিন্ধান্ত নিয়েছে সরকার কিন্তু সরকারী নির্দেশনা অমান্য করে স্কুল খোলা রাখা ঠিক হয়নি প্রচন্ড গরমে ছেলে স্কুলে যেতে চায় না। জোর করে স্কুল পাঠিয়েছি নাহলে তো ছেলে অন্যদের তুলনায় পিছিয়ে যাবে। কিন্তু স্কুল ছুটির পর গরমের মধ্যে রাস্তা দিয়ে বাসায় এসে অস্থির হয়ে পড়ছে।

নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক এক শিক্ষার্থী বলেন, গরমের মধ্যে ক্লাসে আমরা অস্থির হয়ে পড়ি। প্রচণ্ড দাবদাহের কারণে ছাত্রছাত্রীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিষয়টি বিবেচনায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি ঘোষণা করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়।কিন্তু সরকারি সিদ্ধান্ত অমান্য করে চলছে প্লে থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত ক্লাস। স্কুল ১১টায় যখন স্কুল ছুটি হয় তখন প্রচন্ড রৌদ্র ও গরম থাকে। প্রচন্ড রৌদ্র ও গরম মধ্যে হেটে বাসায় এসে অসুস্থ হয়ে পড়ি। প্রতিদিন স্কুলে যেতে বলা হয়েছে।

সরকারি সিদ্ধান্ত অমান্য করে স্কুল খোলা রাখা বিষয়ে জানতে চাইলে হাজী রফিক চাঁন মোল্লা উচ্চ বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সাইফুল ইসলাম মহসীন বলেন,আমরা সকাল ৮টা থেকে ১১টা পর্যন্ত ক্লাস চালু রেখেছি। আমরা স্কুল কমিটির সাথে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবো স্কুল খোলা রাখবো নাকি বন্ধ থাকবে।

কেরানীগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কামরুন নাহার বলেন, কোনোভাবেই সরকারি আদেশ অমান্য করার সুযোগ নেই। তাঁরা কেন সরকারি আদেশ অমান্য করে স্কুল খোলা রেখেছে। অবশ্যই তাদরে বিরুদ্ধে
যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন