ঢাকা ০৩:৪৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফতুল্লায় ওয়াশরুম থেকে তরুণের লাশ উদ্ধার

মো: সাদ্দাম হোসেন মুন্না খান (নিজস্ব প্রতিবেদক)
মো: সাদ্দাম হোসেন মুন্না খান (নিজস্ব প্রতিবেদক)
  • আপলোড সময় : ০৬:০০:৪৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০২৩
  • / ৩০১ বার পড়া হয়েছে

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় পারিবারিক কলহের জেরে মোহাম্মদ আলি (১৮) নামের এক তরুণ আত্মহত্যা করেছেন। ফতুল্লার কুতুবপুর ইউনিয়নের ভূঁইগড়ে এ ঘটনা ঘটে। মোহাম্মদ আলি ভূঁইগড়ের সেলিম মাস্টারের বাড়ির ভাড়াটিয়া। আলী শরীয়তপুরের পালং থানার বিনোদপুর গ্রামের মো. লিটন মোল্লার ছেলে তিনি। সে স্থানীয় একটি লাইট ফ্যাক্টরিতে কাজ করতো।১৯ অক্টোবর শুক্রবার রাত সাড়ে ১২ টায় আলিকে অচেতন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে আনেন তার স্বজনরা। এসময় চিকিৎসক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে তাকে মৃত ঘোষণা করে।মোহাম্মদ আলীর বাবা লিটন মোল্লা বলেন, গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে কাজ শেষে বাড়িতে এলে পারিবারিক বিষয় নিয়ে আলির সাথে কথা কাটাকাটি হয় । এরপর সে ওয়াশরুমে যায়। দীর্ঘক্ষণ পরেও ওয়াশরুম থেকে না বের হওয়ায় আমরা সন্দেহ করি। ডাকাডাকি করেও তাঁর কোনো সাড়াশব্দ পাওয়া যাচ্ছিলো না। পরে আশেপাশের লোকজন নিয়ে ওয়াশরুমের দরজা ভেঙে দেখি গলায় গামছা পেঁচিয়ে ভেন্টিলেটরের সাথে ঝুলে আছে সে। এসময় অচেতন অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।
ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ মো. বাচ্চু মিয়া বলেন, মোহাম্মদ আলির মরদেহ হাসপাতালের মর্গে রয়েছে। ফতুল্লা থানা পুলিশকে বিষয়টি জানানো হয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

ফতুল্লায় ওয়াশরুম থেকে তরুণের লাশ উদ্ধার

আপলোড সময় : ০৬:০০:৪৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০২৩

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় পারিবারিক কলহের জেরে মোহাম্মদ আলি (১৮) নামের এক তরুণ আত্মহত্যা করেছেন। ফতুল্লার কুতুবপুর ইউনিয়নের ভূঁইগড়ে এ ঘটনা ঘটে। মোহাম্মদ আলি ভূঁইগড়ের সেলিম মাস্টারের বাড়ির ভাড়াটিয়া। আলী শরীয়তপুরের পালং থানার বিনোদপুর গ্রামের মো. লিটন মোল্লার ছেলে তিনি। সে স্থানীয় একটি লাইট ফ্যাক্টরিতে কাজ করতো।১৯ অক্টোবর শুক্রবার রাত সাড়ে ১২ টায় আলিকে অচেতন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে আনেন তার স্বজনরা। এসময় চিকিৎসক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে তাকে মৃত ঘোষণা করে।মোহাম্মদ আলীর বাবা লিটন মোল্লা বলেন, গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে কাজ শেষে বাড়িতে এলে পারিবারিক বিষয় নিয়ে আলির সাথে কথা কাটাকাটি হয় । এরপর সে ওয়াশরুমে যায়। দীর্ঘক্ষণ পরেও ওয়াশরুম থেকে না বের হওয়ায় আমরা সন্দেহ করি। ডাকাডাকি করেও তাঁর কোনো সাড়াশব্দ পাওয়া যাচ্ছিলো না। পরে আশেপাশের লোকজন নিয়ে ওয়াশরুমের দরজা ভেঙে দেখি গলায় গামছা পেঁচিয়ে ভেন্টিলেটরের সাথে ঝুলে আছে সে। এসময় অচেতন অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।
ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ মো. বাচ্চু মিয়া বলেন, মোহাম্মদ আলির মরদেহ হাসপাতালের মর্গে রয়েছে। ফতুল্লা থানা পুলিশকে বিষয়টি জানানো হয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন